Skip to content Skip to sidebar Skip to footer

বুখারেস্টঃ পূর্ব ইউরোপের প্যারিসে একদিন

লিখেছেনঃ রাকিব হাসান রাফি

প্রত্যেকদিনের মতো আজকেও সকালে ঘুম থেকে উঠেছি; অন্যান্য দিনের মতো আজকে সকালটা স্বাভাবিকভাবেই শুরু হওয়ার কথা। পূর্ব দিগন্তে সূর্যের লাল আভা দেখা যাচ্ছে। শীতকে বিদায় করে এখন চারিদিকে বসন্তের আবির্ভাব ঘটেছে। গাছে গাছে কেবল নতুন পাতা গজাতে শুরু করেছে। চারদিক থেকে ভেসে আসছে ফুলের গন্ধ; পাখিরা সব গান গাইতে শুরু করেছে আর মৌমাছিরা নতুন দিনের আগমনের সাথে সাথে ঝাঁক বেঁধে ছুটতে আরম্ভ করেছে ফুল থেকে মধু আহরণ করতে। বাতাসও এ সময় অনেকটা শান্তভাবে প্রবাহিত হচ্ছে; কেউ দেখলে বলবেই না সদ্য বিদায় জানানো শীতের সময় এখানকার অবস্থা এতোটা রুক্ষ আর নির্জীব হয়ে পড়েছিলো; প্রকৃতির এ সজীবতা হয় তো আমার জীবনে সঞ্চারিত হতে পারতো কিন্তু আজকের দিনে সেটি আর হলো না। কোনও এক কারণে অতীতের কোনও এক স্মৃতি এসে ক্ষণিকের জন্য আবার ফিরিয়ে নিয়ে গেলো হারিয়ে যাওয়া একটি দিনের ভেতরে। জীবনে বসন্ত এসেছিলো বলতে গেলে সেই এক দিন্। কয়েক সেকেণ্ডের জন্য সে দিনে ফিরে গেলেও যখন আবার বাস্তবতার মাঝে ফিরে আসলাম তখন দেখলাম হায় জীবন থেকে হারিয়ে গেছে অনেক সুন্দর একটি মুহূর্ত; জানি না কোনও দিন্ সেটি আর জীবনে ফিরে আসবে কি না! 

বুখারেস্টের সিটি সেন্টার

অনেক কষ্ট আর না প্রাপ্তির মধ্য দিয়ে কেঁটেছে এ জীবন; জীবনের হতাশা একটা পর্যায় এসে এমন এক জায়গায় গিয়ে ঠেকেছিলো যে কোনও দিন্ একটা হাসি হাসতে পারবো সেটা কল্পনা করা ভুলে গিয়েছিলাম। আসলে আমার এখন যে রকম বয়স অর্থাৎ উঠতি বয়সের যাঁরা আমরা তাঁদের জীবনে হতাশা জিনিসটি স্বাভাবিক বৈ অন্য কিছু নয়। অনেক দেশ ঘুরেছি, অনেক মানুষের সাথে কথা বলেছি, অনেক কিছুর স্বাদ নিয়েছি কিন্তু সেই দিনের সে অভিজ্ঞতা কিংবা স্বাদ ছিলো সম্পূর্ণ আলাদা। দিনের শুরুটা হয়েছিলো মিষ্টি একটি হাসি দিয়ে আর শেষটা হয়েছিলো কান্না আর হতাশা দিয়ে। সত্যিকারের ভালোবাসা আর মন থেকে হাসির সে স্বাদটি বোধ জীবনে প্রথমবার সেদিন আমি পেয়েছিলাম আবার হৃদয় ভাঙার সত্যিকারের ব্যাথাটি সেদিন পেয়েছিলাম। সে দিন্ ছিলো সব কিছু পাওয়ার দিন্, সে দিন্ ছিলো একই সাথে সব কিছু হারাবার দিন্। সে দিন্ ছিলো জীবনের শ্রেষ্ঠ দিনগুলোর মধ্যে একটি, সে দিন্ ছিলো জীবনের সবচেয়ে দুঃখের দিন্। কেনও এ দুই মেরুর বৈপরিত্য? আজকে সে গল্পই করবো। 

২০১৮ সালের ০৫ই এপ্রিল। জীবনে সে দিন সত্যিকারের জুয়া খেলেছিলাম; স্প্রিং এর ছুটির কারণে সে সময় ইউনিভার্সিটি বন্ধ ছিলো। মার্চ মাসের শেষের দিকের কোনও এক সময় হতে এপ্রিল মাসের প্রথম দিকের মধ্যবর্তী একটি সপ্তাহ। ক্যাথলিক চার্চে বিশ্বাসী খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের লোকেরা এ সময় ইস্টার উৎসবে মেতে উঠে। বড়দিনের পর ইস্টার হচ্ছে ক্যাথলিক চার্চে বিশ্বাসী খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের লোকেদের কাছে সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব। ইউরোপে আসার পর থেকে কেনও জানি আমার মাঝে বুলগেরিয়া আর রোমানিয়া এ দুইটি দেশ নিয়ে আমার বিশেষ একটা আগ্রহ কাজ করতো। বিশেষ করে এই দুইটি দেশের ভাষা আর সংস্কৃতিকে কাজ থেকে দেখার একটা আগ্রহ সে সময় প্রবলভাবে কাজ করেছে। এ কারণে পরিকল্পনা করে করলাম সে বারের বসন্তকালীন ছুটিতে এ দুইটি দেশ ভ্রমণে বের হবো। এরোপ্লেনের টিকেটও করে ফেললাম হাঙ্গেরির রাজধানী বুদাপেস্ট থেকে বুলগেরিয়ার রাজধানী সোফিয়াতে পৌঁছানোর জন্য। বুলগেরিয়া দিয়েই শুরু করলাম সে বছরের স্প্রিং এর ছুটির প্রথম দিনটি। বুলগেরিয়াতে প্রধানত আমার টার্গেট ছিলও ছিলো রাজধানী সোফিয়া এবং বুরগাসে অবস্থিত সানি বীচ ও নেসেবারের ওল্ড টাউনকে কাছ থেকে অবলম্বন করা। সবাই বলে যদি কেউ বুলগেরিয়াতে ভ্রমণে আসেন তাহলে না কি কৃষ্ণসাগরের তীরে অবস্থিত নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের আধার এ বুরগাস শহরে না ঘুরলে না কি বুলগেরিয়া ভ্রমণের স্বাদ পাওয়া যায় না। রিলা মাউনটেন, পিরিন ন্যাশনাল পার্ক, ভেলিকো তারনভো, পৃথিবীর গোলাপ ফুলের বাগান খ্যাত কাজানলাক এ সকল জায়গাতেও যাওয়ার ইচ্ছা ছিলো কিন্তু বুলগেরিয়ার রাজধানী সোফিয়াতে অবস্থিত আলেকজান্ডার নেভস্কি ক্যাথেড্রাল ছাড়া আর তেমন কোনও কিছু আমাকে আকর্ষণ করে নি। বুলগেরিয়াকেও তেমনভাবে আমি ভালো লাগাতে পারি নি। বুলগেরিয়া থেকে তাই যখন পাশের দেশ রোমানিয়াতে যাচ্ছিলাম থেকে তাই বিশেষ কিছু পেতে পারি সে প্রত্যাশা ছিলো না। সোফিয়ার এয়ারপোর্টের ইমিগ্রেশনে কিছু অপ্রত্যাশিত ঘটনার সম্মুখীন হওয়ায় ভেবেই নিয়েছিলাম যে বুলগেরিয়ার ট্যুরকে আর দীর্ঘায়িত আর করবো না এবং রোমানিয়াতেও যাবো না। গোটা বুলগেরিয়া ট্যুরে কিছু না কিছু বাজে অভিজ্ঞতা লেগেই ছিলও প্রায় সময়ই। যে রকম আগ্রহ নিয়ে বুলগেরিয়া এসেছিলাম সোফিয়াতে প্রবেশের পর কেনও জানি সব কিছু পানসে হয়ে আসছিলও। তাই সরাসরি  হাঙ্গেরিতে ফিরে যেতে চাইলাম কিন্তু সোফিয়া থেকে বুদাপেস্ট এর ফিরতি টিকেটের দাম হঠাৎ করে বেড়ে যাওয়ার কারণে সেটা আর হয়ে উঠে নি। এ দিকে বুলগেরিয়ার রাজধানী সোফিয়া থেকে রোমানিয়ার রাজধানী বুখারেস্টে এ যাওয়ার বাস টিকেটের দাম ছিলো মাত্র এক ইউরো. আমাদের দেশের টাকায় একশো টাকার কাছাকাছি। ঝুঁকি নিয়ে চলে গেলাম রোমানিয়াতে। আত্মীয়-স্বজনের অনেকে বলছিলো রোমানিয়াতে না যাওয়ার জন্য। গ্রেট ব্রিটেন, ফ্রান্স, ইটালি, অস্ট্রিয়া, জার্মানি, নরওয়ে, সুইডেন এ সকল দেশে যাঁরা থাকেন তাঁদের বেশীর ভাগ মানুষই রোমানিয়াকে আড় চোখে দেখে। রোমানিয়া এবং হাঙ্গেরি পাশাপাশি দুইটি রাষ্ট্রে হলেও হাঙ্গেরির সাথে রোমানিয়ার দ্বৈরথ দীর্ঘ দিনের। ট্রান্সসিল্ভানিয়া নামক একটা জায়গা আছে যেটা বর্তমানে রোমানিয়ার একটি অংশ। ট্রান্সসিল্ভানিয়ার মালিকানা নিয়ে এ দুই দেশের মধ্যাকার বৈরিতা সব সময় চরম । হাঙ্গেরির দাবি হচ্ছে ট্রান্সসিল্ভানিয়া আসলে তাঁদের অংশ এবং প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর হাবসবুর্গ সাম্রাজ্যের পতন ঘটলে ফ্রান্সের ভার্সাই শহরে যে “Treaty of Trianon”  এর চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিলও তাঁর মাধ্যমে অন্যায়ভাবে ট্রান্সসিল্ভানিয়ার শাসনভার হাঙ্গেরির হাত থেকে নিয়ে রোমানিয়ার হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিলও। হাঙ্গেরিয়ানদের জাতীয়তাবাদের সাথে এজন্য রোমানিয়ানদের জাতীয়তাবাদ সম্পূর্ণভাবে সাংঘর্ষিক। ইউরোপের বিভিন্ন দেশের মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক ও সহযোগিতা আর অভিন্ন অর্থনৈতিক ব্যবস্থা তৈরী করতে এখন ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সৃষ্টি হয়েছে। হাঙ্গেরি এবং রোমানিয়া এ দুই দেশই ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সদস্য রাষ্ট্র।. তারপরেও এ বৈরিতার মাঝে কোনও ভাবে কোনও ভাটা পড়ে নি আর হাঙ্গেরি এবং রোমানিয়ার মধ্যাকার তিক্ততার ব্যাপারটি এতো গুরুতর হিসেবে দুই দেশের মানুষ দেখে থাকেন যে এখানে কোনও ধরণের ঠাট্টা করা চলে না। “Treaty of Trianon” এর চুক্তি হাঙ্গেরিয়ান আর রোমানিয়ান এ দুই জাতিগোষ্ঠীর মানুষের মাঝে এতো দূরত্ব সৃষ্টি করেছে যে এদের অনেকে মনে করে যে এরা একে অপরকে শেষ করে দিতে পারলে সব সমস্যার নিষ্পত্তি হয়ে যাবে। হাঙ্গেরিয়ানরা এক্ষেত্রে বেশী কর্কশ আর উগ্র। “ভ্লাদ দ্যা ইম্পলার” যিনি পাশ্চাত্য উপন্যাস কিংবা সিনেমাতে ড্রাকুলা নামে পরিচিত তাঁর জন্ম ট্রান্সসিল্ভানিয়ার অন্তর্গত সিগহিশোয়ারাতে এবং ভ্লাদ দ্যা ইম্পলার ছিলেন অর্থোডক্স খ্রিস্টানিটিতে বিশ্বাসী। ক্যাথলিক চার্চ কিংবা হাঙ্গেরিয়ান জাতীয়তাবাদ কোনোটির সাথে তাঁর সম্পর্ক নেই। তাই হাঙ্গেরিয়ানদের দাবি সত্যি এমনটি বলা যাবে না বরং হাঙ্গেরি যখন পূর্ব ইউরোপে একটি শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হয় তখন অন্যায়ভাবে আশেপাশের কিছু জায়গাকে তাঁর দখলে নিয়েছিলও এবং ট্রান্সসিল্ভানিয়া হাঙ্গেরিয়ানদের দখল করা এমনই একটি বিতর্কিত অঞ্চল যা প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর আবার রোমানিয়াকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। ভারত এবং পাকিস্তান এ দুই দেশের মাঝে যে দ্বন্দ্ব তা কেবল রাজনৈতিক অঙ্গনেই সীমাবিদ্ধ। সামাজিক ক্ষেত্রে এ দুই দেশের মধ্যে কোনও বিভেদ নেই। ইউরোপে আসার পর অনেক জায়গায় আমি দেখেছি যে ভারত এবং পাকিস্তান এ দুই দেশের মানুষজনকে একে-অপরের সাথে নিবিড়ভাবে বন্ধুত্ব স্থাপন করতে কিংবা এক সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে। হাঙ্গেরিয়ান আর রোমানিয়ানদের মাঝে সামাজিক বন্ধন খুব বেশী সুদৃঢ় হয়ও না সহজে। বুলগেরিয়াতে পা রাখার পর সেখানকার তিক্ত কিছু অভিজ্ঞতা এবং একই সাথে যেহেতু আগেই অনেকের থেকে রোমানিয়ার ব্যাপারে নেতিবাচক কথা শুনছিলাম এ জন্য রোমানিয়া সম্পর্কে আমার তেমন কোনও ইতিবাচক ধারণা ছিলো না সব কিছু মিলিয়ে এটা বলাবাহুল্য। চৌঠা এপ্রিল রাতে আমি রওয়ানা হই বুলগেরিয়ার রাজধানী সোফিয়া থেকে রোমানিয়ার রাজধানী বুখারেস্টের উদ্দেশ্যে। বুলগেরিয়ার হাইওয়ে রাস্তাগুলো খুবই উন্নত এবং আধুনিক। দেখে মনে হয় যেনও নতুন করে রাস্তাগুলো ঢালাই করা। অন্ততঃ যে কয়েকটি রুটে আমি যাতায়াত করেছি সে কয়েকটি রুটের অভিজ্ঞতা থেকে বলছি। কিন্তু রোমানিয়াতে প্রবেশ করার পর দেখলাম হাইওয়ের রাস্তাগুলো কিছুটা অমসৃণ আর পুরোনো। মাঝে-মধ্যে বাংলাদেশের মতো ঝাঁকুনির সৃষ্টি হয়। সেখান থেকে ভয় লাগা শুরু; না জানি কোথায় এসে পৌঁছালাম। তবে বুলগেরিয়া আর রোমানিয়ার সীমান্তবর্তী এলাকার চেক পোস্টে এর সময় একটা মজার কাহিনী ঘটেছিলো। একজন বর্ডার পুলিশ আমার কাছে আসলেন এবং আমাকে দেখার সাথে সাথে নিথর হয়ে দাঁড়িয়ে পড়লেন; অনেকক্ষণ অবাক দৃষ্টিতে আমার দিকে তাকিয়ে রইলেন। মনে হলো তিনি বোধ হয় কখনও কালো চামড়ার বাহিরের কোনও মানুষকে দেখেন নি। আমি তাঁকে আমার পাসপোর্ট আর স্লোভেনিয়ার রেসিডেন্ট পারমিট বের করে দিলাম কিন্তু তারপরেও আমার ওপর থেকে তাঁর দৃষ্টি বিন্দুমাত্রও সরলো না। কিছুক্ষণ পর তিনি চলে গেলেন। অতঃপর আরও কিছু সময় অতিবাহিত হওয়ার পর একজন পুলিশ অফিসার এসে আমাকে জিজ্ঞেস করলেন- “Do you speak English???” আমি বললাম “Of course, I can speak English.” তিনি আমাকে এরপর জিজ্ঞেস করলেন, “Where are you from?? And what do you do in Hungary?” আমি বললাম যে-“I am from Bangladesh and I study in Slovenia. I have come to Slovenia for completing my Bachelor of Science in Physics. And I am spending three months” তিনি আমাকে জিজ্ঞেস করলেন-“What are you going to do in Romania ?” আমি উত্তর দিলাম যে “ I am travelling to Romania as a tourist. I am curious to learn about Romania and her culture, society and people”. এ কথা শুনে তিনি আমাকে বললেন-” I wish you a very pleasant time in Romania. Once you are here; you will never think to go back to any other country apart from Romania. Our society and culture will greatly make an impression on you and you will always think to come back to our country again and again. We may not be solvent economically like other European Nations but we have greater heart than most of the other nations. Welcome to Romania! And do not forget to finish your studies successfully. Study well and go back to your countries. For the prosperity and the development of your country, your country is looking for a youth like you.”

পুলিশ অফিসারের সাথে কথোপকথনের অভিজ্ঞতা খানিক সময়ের জন্য আমার মনে আশার সঞ্চার করছিলো। বুখারেস্টের মিলিটারি অটোগারা স্টেশনে এসে আমাদের বাস থামে। বর্ডার থেকে বুখারেস্ট পৌঁছাতে তেমন একটা সময় লাগে নি বরং নির্ধারিত সময়ের দেড় ঘণ্টা আগে আমরা বুখারেস্টে পৌঁছে যাই। ঘড়ির কাঁটায় তখন ভোর সাড়ে চারটা; এক বয়স্ক লোক এসে জিজ্ঞেস করে আমার ট্যাক্সি লাগবে কি না! আমি বললাম আমার ট্যাক্সির প্রয়োজন নেই; শুধুমাত্র বিশ্রাম নেওয়ার জন্য একটু জায়গা প্রয়োজন। তিনি আমাকে তখন ছোটো একটা জায়গা দেখিয়ে দিলেন বিশ্রাম নেওয়ার জন্য। আমি একটু ভয়ের মধ্যে ছিলাম কারণ জায়গাটি ছিলো বুখারেস্ট শহরের সেন্ট্রাল বাস টার্মিনালের হাব। স্টেশনের ভেতরে প্রবেশ করতে গিয়ে দেখি মূল দরজা তালাবদ্ধ। বেলজিয়াম, জার্মানি, ডেনমার্ক কিংবা নরওয়ের কয়েকটি শহর ভ্রমণের অভিজ্ঞতা থেকে দেখেছিলাম  এ সকল শহরে রাতে স্টেশনের ভেতরের রুম বন্ধ করার সময় একজন সিকিউরিটি গার্ড এসে যাত্রীদের বের করে দেন।  যাত্রী ছাউনি ছাড়া অন্য কোথাও এ সময় কেউ অবস্থান করতে পারেন না। বুখারেস্টে  তেমনটি হয় নি। রোমা নামক এক স্বতন্ত্র জাতিগোষ্ঠীর অনেক মানুষ রয়েছে পূর্ব ইউরোপের দেশগুলোতে। এরা সাধারণভাবে জিপসি বা যাযাবর নামে পরিচিত; এরা দেখতে গতানুগতিক ইউরোপিয়ানদের মতো নয়। তাদের গায়ের চামড়া কিছুটা গাঢ় বর্ণের হয়ে থাকে। শারীরিক গড়নের দিক থেকে আমাদের এ উপমহাদেশের মানুষদের সাথে তাদের সামঞ্জস্য খুঁজে পাওয়া যায়। রোমা জাতিগোষ্ঠীর মানুষদের নিজস্ব ভাষা ও  সংস্কৃতি রয়েছে। এদের চালচলনের ভঙ্গিও ইউরোপিয়ানদের থেকে আলাদা। তুলনামূলকভাবে এরা অনেকটা অপরিষ্কার। অনেকে বলে রোমা জাতিগোষ্ঠীর এ সকল অধিবাসীদের পূর্ব পুরুষরা নাকি ভারতীয় উপমহাদেশ থেকে কয়েক শতাব্দী পূর্বে ইউরোপে পাড়ি জমিয়ে ছিলেন। পরে তারা ইউরোপ মহাদেশের বিভিন্ন দেশে স্থায়ী হয়ে যান। রোমা জাতিগোষ্ঠীর এ সকল মানুষেরা অনেক সময় বিভিন্ন বৈষম্যের শিকার হন। মূল যারা শ্বেতাঙ্গ রয়েছেন ইউরোপের বিভিন্ন দেশে তারা এদের সাথে সহজে মিশতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন না। এ কারণে রোমা জাতিগোষ্ঠীর এ সকল মানুষের আচরণে রুক্ষতা ফুঁটে উঠে, এরা অনেকটা কুঁড়ে স্বভাবের। ইউরোপের রাস্তাঘাঁটে আমরা ভিক্ষাবৃত্তির সাথে সংশ্লিষ্ট যাদেরকে খুঁজে পাই তাদের বেশিরভাগই এ রোমা সম্প্রদায়ের মানুষ। শিক্ষাক্ষেত্রেও তারা অনেক পশ্চাৎপদ। ইউরোপের সাধারণ মানুষদের অনেকে মনে করেন এরা ছোটোখাটো চুরি থেকে আরম্ভ করে বিভিন্ন অপরাধকর্মের সাথে জড়িত। বুখারেস্টের বাস স্টেশনে পা রাখার সাথে সাথে চারিদিকে শুধু তাদের অস্তিত্ব চোখে ধরা দিলো। ঘর পোড়া গরু সিঁদুরে মেঘ দেখলেই দৌড়ায় পালায়। ইউরোপে আসার পর থেকে রোমা জাতিগোষ্ঠীর মানুষ সম্পর্কে অনেক নেতিবাচক কথা শুনেছি। রোমানিয়া সম্পর্কেও অনেকে বাজে মন্তব্য করেছে। ভোরে মিলিটারি আটোগারার বাস স্টেশনে পা রাখার সাথে সাথে অনেকটা আঁতকে উঠলাম। হাঙ্গেরি, পোল্যান্ড, ইতালি, সার্বিয়াসহ ইউরোপের অনেক জায়গায় বেশ কয়েকবার রোমা জাতিগোষ্ঠীর কিছু মানুষের সাথে আমার বাজে এক ধরণের অভিজ্ঞতা হয়েছিলো। বুলগেরিয়াতেও সেটার ব্যতিক্রম হয় নি। স্বভাবতঃ সে খারাপ অভিজ্ঞতার কথা মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছিলো। কিছুক্ষণ পর আচমকাই মিলিটারি অটোগারা থেকে সকলে যেনও হাওয়ায় মিশে গেলো, আমি একা বসে আছি তখন বলতে গেলে বাস স্টেশনে একা। আশেপাশে কেউ নেই, কোনও কিছু খোয়া যায় কি না এ ভয়ে চোখের পাতা এক করতে পারছি না। সকাল ছয়টার দিকে এক ভদ্র লোক এসে স্টেশনের ভেতরের ইনফরমেশন অফিস খুললেন; কিছুক্ষণ পর এক মাঝবয়সী মহিলা আসলেন আমার কাছে।  আমাকে দেখে তিনি জিজ্ঞেস করলেন ” Where are you from???” আমি বললাম যে আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। তিনি বললেন যে ইংরেজিতে তাঁর দক্ষতা খুব একটা বেশী ভালো না। তারপরেও ভাঙা ভাঙা ইংরেজিতে তিনি বললেন যে তিনি ট্রান্সসিল্ভানিয়া থেকে এসেছেন এবং সেখানে ফিরে যাবেন। আমি তাকে বললাম যে দীর্ঘ দিন্ স্লোভেনিয়াতে থাকার সুবাদে সেখানে বসবাস করা অনেক হাঙ্গেরিয়ানের কাছে শুনেছি যে ট্রান্সসিলভানিয়া প্রকৃতপক্ষে হাঙ্গেরির অংশ কিন্তু প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর ট্রান্সসিল্ভানিয়াকে  হাঙ্গেরির থেকে নিয়ে রোমানিয়ার হাতে তুলে দেওয়া হয়; তার কাছে আমি এ দাবির সত্যতা জানতে চাইলাম। তিনি আমার প্রশ্নের পরিপ্রেক্ষিতে উত্তর দিলেন যে এ কথাটি আসলে সত্য নয়। এরপর তিনি আমাকে তাঁর সাথে ট্রান্সসিলভানিয়াতে যাওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানালেন। আমাকে তিনি বললেন যে যদি আমি ট্রান্সসিলভানিয়াতে যাই তিনি আমাকে সব ঘুরিয়ে দেখাবেন। সে মুহূর্তে আমার ট্রান্সসিলভানিয়া ঘুরার কোনো পরিকল্পনা ছিলো না তবে তাঁকে আমি বলি কোনো ট্রান্সসিলভানিয়াতে গেলে অবশ্যই দেখা করবো তাঁর সাথে। তিনি আমাকে তাঁর ফোন নাম্বার ও বাসার ঠিকানা দিয়ে বললেন “GOOD BYE!!! Have a nice trip to Bucharest and you are welcome in Transylvania too.” অতঃপর আমি তাঁর কাছ থেকে বিদায় নিলাম; আমার মোবাইল ফোনে চার্জ ছিলো না। পাওয়ার ব্যাংকও কাজ করছিলো না। ইনফরমেশন ডেস্কে বসা সে ভদ্রলোককে বললাম আমার আমার মোবাইল ফোনে চার্জ দেওয়া যাবে কি না। তিনি আমার কাছ থেকে আমার ফোন আর চার্জার নিয়ে প্লাগ ইন করলেন কিন্তু দেখলেন যে আমার ফোনে চার্জ হচ্ছে না। আমাকে তিনি আমার মোবাইল ফোন ফেরত দিলেন, খানিক বাদে আবার গেলাম তাঁকে অনুরোধ করতে এবং তিনিও একইভাবে আমার কাছ থেকে আমার ফোন আর চার্জার নিয়ে প্লাগ ইন করলেন। এবার চার্জিং লেখা আসলো কিন্তু চার্জ আর হলো না। আমি আস্তে কেঁটে পড়লাম। কিছুক্ষণ পর এসে তাঁর কাছ থেকে মোবাইল ফোনটা নিলাম এবং দেখলাম আসলে তিনি ঠিক মতো প্লাগ ইন করতে পারেন নি; আমি তাঁকে দেখালাম। তিনি আমাকে ইশারা দিলেন  যাতে আমি নিজ থেকে এবার চার্জারটাকে প্লাগ ইন করি। আমি ঠিকমতো ফোনটাকে চার্জে দিয়ে করে স্টেশনের ভেতরে এক কোণায় বেঞ্চের ওপরে ঘুমিয়ে পড়ি। আমার পাশে আরও দুই জন ঘুমাচ্ছিলেন। সকাল সাড়ে সাতটার দিকে আমার ঘুম ভাঙে। ইনফরমেশন ডেস্কে বসা সে ভদ্রলোকের কাছ থেকে আমার ফোনটা নিয়ে পাশে থাকা ওয়াশ রুমে যাই একটু ফ্রেশ হওয়ার জন্য।  ওয়াশরুমের ভেতর প্রবেশ করতে এক এক রোমানিয়ান লিউ পে করতে হয় কিন্তু আমার কাছে কোনও রোমানিয়ান মুদ্রা ছিলো না। ফলে বেশ কিছুক্ষণের জন্য হতবিহ্বল হয়ে পড়লাম। তখন এক বয়স্ক ভদ্রমহিলা আমাকে ইশারা দিয়ে বললেন ভেতরে যাওয়ার জন্য। আমি ওয়াশ রুমের ভেতরে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে নিলাম। এরপর বের হওয়ার সময় আমি তাঁর দিকে তাকিয়ে বলতে থাকলাম “ Thank you very much!” কোনও কিছু না বলে আমার দিকে তাকিয়ে তিনি হাসতে থাকলেন। পাশের বাস কাউন্টারের সামনে গিয়ে ডেস্কে থাকা এক মেয়েকে জিজ্ঞেস করি “Do you speak English?”  তাঁর পাশে বসা মেয়ে বলে উঠলো “How can I help you???” আমি বললাম যে আমি রোমানিয়াতে বেড়াতে এসেছি এবং আমার কাছে কোনও রোমানিয়ান মুদ্রা নেই; তবে কিছু ইউরো আছে। তাছাড়া তখন প্রায় সকাল সাড়ে সাতটার কাছাকাছি, সুতরাং আশেপাশের কোনও মানি একচেঞ্জও খোলার কথা না। তাঁকে আমি জিজ্ঞেস করি যদি তিনি আমাকে কিছু রোমানিয়ান লিউ দিয়ে সাহায্য করতে পারেন। তিনি আমাকে বললেন যে আমি কতো ইউরো একচেঞ্জ করতে চাই। আমি বললাম আমার আপাতত পাঁচ ইউরো একচেঞ্জ করতে পারলেই হবে। তিনি তাঁর পাশে থাকা মেয়েকে যাঁর সাথে আমি প্রথমে কথা বলেছিলাম তাঁকে এ পাঁচ ইউরো রেখে কিছু রোমানিয়ান লিউ দিতে বললেন। পাঁচ ইউরোর পরিবর্তে তিনি আমাকে ২১ রোমানিয়ান লিউ দিলেন। মার্কেট রেটও এরকম ছিলো। লিউ এর নোটগুলো দেখার সাথে সাথে আমার চোখ ছানাবড়া হয়ে উঠলো; জীবনে এতো সুন্দর কাগজের নোট আমি আজ অবধি কখনও দেখি নি। রোমানিয়ার প্রত্যেকটি নোট পলিমারের তৈরি এবং একেকটি মুদ্রামানের নোট একেকটি শিল্পকর্মে আচ্ছাদিত। আমার ব্যবহার করা সবচেয়ে সুন্দর নোট এ রোমানিয়ান লিউ। তাঁদের  দুই জনকে ধন্যবাদ আর কৃতজ্ঞতা জানিয়ে আমি চলে যাই ওয়াশ রুমের দিকে সে ভদ্রমহিলাকে খুঁজে বের করার জন্য। তাঁর হাতে এক রোমানিয়ান লিউ এর নোট দিতে না দিতেই তিনি বলে আমাকে বুকে জড়িয়ে ধরে ফরাসি ভাষায় বলে উঠলেন ” Merci beaucoup! Bonne journée.“ যার ইংরেজি অনুবাদ হচ্ছে “Thank you very much! Have a nice day.” এরপর বাস টার্মিনালের কাছে থাকা একটা দোকানে গেলাম এবং সেখান কিছু জিনিস কিনলাম। সোমালিয়ার কয়েকজন মেয়ের সাথে পরিচয় হলো, তাঁরা বুখারেস্টে বসবাস করেন এবং সেখানকার বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করেন। তাঁদের সাথে কুশল বিনিময় করে আমি মিলিটারি অটোগারা থেকে বাহিরে বেরিয়ে পড়লাম। প্রথমে ঠিক করলাম যে রোমানিয়ার ন্যাশনাল পার্লামেন্ট দেখতে যাবো। রোমানিয়ানদের মাঝে একটি অদ্ভুত জিনিস আমি লক্ষ্য করলাম। তাঁরা পোশাকে-আশাকে একেবারে সাদামাটা, স্লোভেনিয়া কিংবা ইতালির স্থানীয় অধিবাসীরা পোশাকের ব্যাপারে অনেক শৌখিন। তবে রোমানিয়ানদের মাঝে সে বিষয়টা লক্ষ্য করা গেলো না। তবে রোমানিয়ান মেয়েরা মেক আপ আড় লিপস্টিকের প্রতি প্রচণ্ডমাত্রায় দুর্বল। রোমানিয়ায় মেয়েদের চুল দেখে বলে দেওয়া যায় তিনি বিবাহিত কী না। অবিবাহিত মেয়েরা চুল খোলা রাখতে পছন্দ করেন। তারা সাধারণত চুল বেণী করে থাকেন। বিবাহিত নারীরা মারামা নামক এক ধরণের কাপড় দিয়ে চুল ঢেকে রাখেন। মিলিটারি অটোগারা থেকে বের হতেই চোখে পড়লো দেশটির বৃহত্তম সামরিক যাদুঘর। বিভিন্ন ধরণের ট্যাংক, ফাইটার প্লেন, মিলিটারি যানবাহনসহ এককালে ব্যবহৃত বিভিন্ন যুদ্ধাস্ত্রে সুসজ্জিত এ মিউজিয়াম। পথিমধ্যে এক লোককে জিজ্ঞেস করলাম যে তিনি ইংরেজি বোঝেনন কি না; তিনি বললেন যে তিনি ইংরেজি মোটামুটি বুঝেন। আমি তাঁকে বললাম যে আমি রোমানিয়ার ন্যাশনাল পার্লামেন্ট পরিদর্শনে আগ্রহী। রাস্তার ঠিক উল্টো পাশে মিলিটারি মিউজিয়ামের সাথেই মেট্রো স্টেশন। আমি তাঁকে জিজ্ঞেস করলাম যে মেট্রোতে যাতায়াতে খরচ কেমন? তিনি উত্তর দিলেন মাত্র ২.৫ লিউতে ওয়ান ওয়েতে মেট্রো ভ্রমণের টিকেট পাওয়া যায়। মেট্রো স্টেশনে পৌঁছানোর পর ভেতরের কাউন্টার থেকে মেট্রোতে উঠার টিকিট কিনলাম এবং স্টেশনের ভেতরে ঢুকে আবারও এমন কাউকে খোঁজার চেষ্টা করলাম যিনি ইংরেজি বলতে পারেন। এক ভদ্র মহিলা আমাকে দেখে আমাকে জিজ্ঞেস করলেন, “How can I help you???” আমি বললাম যে “Could you please say to me how I can reach the parliament???” তিনি আমাকে বললেন, ” Are you new in Bucharest???” আমি উত্তর দিলাম, “Yes, I am here for the first time.” তিনি আমাকে বললেন, ” Come with me. I am taking you to the Parliament.” আমি তাঁকে অনুসরণ করলাম। রাস্তায় আমার সাথে তাঁর বিভিন্ন বিষয়ে কথা হলো। আমি ধীরে ধীরে অনুধাবন করতে লাগলাম যে রোমানিয়ানদের সম্পর্কে পশ্চিম ইউরোপের দেশগুলোর মানুষ যে ধরণের ধারণা পোষণ করেন বাস্তবে রোমানিয়ানরা তার থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। আমি বলবো, পৃথিবীর কোনও জাতির মানুষের যদি সত্যিকারের হৃদয় বলে কিছু থাকে সেটা কেবলমাত্র রোমানিয়ানদের মধ্যেই আছে। ভদ্র মহিলা আমাকে রোমানিয়ার ন্যাশনাল পার্লামেন্টে পৌঁছে দিলেন। বুখারেস্টের মেট্রো সার্ভিস ইউরোপ মহাদেশের মধ্যে অন্যতম সেরা মেট্রো সার্ভিসের একটি হিসেবে হিসেবে দাবি করার যোগ্যতা রাখে। গোটা ইউরোপ মহাদেশের মধ্যে সবচেয়ে সস্তায় মেট্রোতে ঘুরা যায় রোমানিয়াতে। মেট্রোর গতি, টিকেট কাউন্টারের পরিসেবা থেকে আরম্ভ করে সঠিক গন্তব্য নিরূপণে সরলতা এবং প্রত্যেকটি স্টপেজে সেবার মান প্রায় একই ধরণের। রোমানিয়ার ন্যাশনাল পার্লামেন্টের কাছে পৌঁছাতে না পৌঁছাতে আমার চোখ কপালে উঠার মতো অবস্থা সে এক বিশাল অট্টালিকা। এতো বিশাল যে পুরো  পার্লামেন্টের চারদিকে একবার চক্কর দিলে দুই দেড় থেকে দুই কিলোমিটার (বা এর বেশীও হতে পারে) হাঁটা হয়ে যাবে। আশেপাশের পথচারী যাদেরকে দেখলাম সকলকে অনুরোধ করলাম আমার ছবি তুলে দেওয়ার জন্য। তাঁরা আমার ছবি তুলে দিলো অত্যন্ত যত্ন সহকারে এবং সবারই একই প্রশ্ন “Where are you from??? Why have you you come to Romania?” আমি উত্তর দিই যে “I am from Bangladesh. I have come to Romania as a tourist.” সবারই এক উত্তর, ” You are welcome in Romania. Since you have come to Romania; you must have some good pictures.” ছবি তোলার পর অনেকে আবার তাদের সাথে এক কাপ কফি পান করার জন্যও আহবান জানিয়েছে। যাঁদের কাছে অনুরোধ করেছি ছবি তোলার জন্য প্রায় সকলে আগ্রহ ও যত্ন সহকারে ছবি তুলে দিয়েছে এবং ছবি তোলা শেষে জিজ্ঞেস করেছে “Is it okay??? If you are not satisfied with it; I may try more for you.” পার্লামেন্টের প্রবেশ দরজায় দেখলাম এক সিকিউরিটি গার্ড। তিনিও ইংরেজি বলতে পারেন। আমি তাঁকে জিজ্ঞেস করলাম যে পার্লামেন্টের ভেতরে প্রবেশের জন্য টিকেট ক্রয়ের ক্ষেত্রে ইউরোতে পেমেন্ট করা যায় কি না। তিনি আমাকে ভেতরে যেতে বললেন এবং সেখানে সংশ্লিষ্ট কারও সাথে কথা বলার পরামর্শ দিলেন। কোনও রকম চেক ছাড়াই তিনি আমাকে সাদরে ভেতরে প্রবেশ করতে দিলেন; সামনের দিক থেকে পার্লামেন্ট দেখতে অসাধারণ। কিছুটা ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মূল অফিস ভবনটির সাথে রোমানিয়ার ন্যাশনাল পার্লামেন্টের স্থাপত্য নকশায় মিল পাওয়া যায়।  পার্লামেন্টের মেইন গেইটের সামনে অনেকগুলো গাড়ি পার্ক করা ছিলো। কার পার্কিং এর সামনে দেখলাম এক ব্যক্তি দাঁড়িয়ে সিগারেট খাচ্ছেন। মাঝ-বয়সী এক লোক এবং তাঁর পোশাকের ধরণ দেখে মনে হলো যে তিনি পার্লামেন্টের অভ্যন্তরে কোনও একটি পদে চাকুরী করেন। আমি তাঁকেও অনুরোধ করলাম পার্লামেন্টের এন্ট্রান্স থেকে আমার কয়েকটি ছবি তুলে দিতে; তিনিও অত্যন্ত যত্ন সহকারে আমার কয়েকটি ছবি তুলে দিলেন এবং আমাকে বললেন সম্পূর্ণ পার্লামেন্টকে উপজীব্য করে তিনি একটি ছবি তুলতে চান যদিও সেটা খুবই দুরূহ বিষয় ছিলো। সত্যিকার অর্থে পার্লামেন্টটি অত্যন্ত বিশাল আকৃতির। ছবি তোলার ফাঁকে ফাঁকেই তিনি আমাকে এ পার্লামেন্ট সম্পর্কে কিছু ইনফরমেশন দিলেন। রোমানিয়ার ন্যাশনাল পার্লামেন্টকে স্থানীয় ভাষায় “Parlamentul României” (পারলামেন্তুল রোমানেই) নামে ডাকা হয়। ওয়াশিংটন ডিসিতে অবস্থিত পেন্টাগনের  রোমানিয়ার পার্লামেন্ট ভবনটি সারা পৃথিবীতে দ্বিতীয় বৃহত্তম নির্মাণ। রোমানিয়ার ন্যাশনাল পার্লামেন্টকে এ যাবৎ কাল পর্যন্ত এ পৃথিবীর সবচেয়ে ভারী নির্মাণ হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। তবে এ পার্লামেন্ট নির্মাণ করতে গিয়ে দেশটির এক সময়ের রাষ্ট্রনায়ক নিকোলেই চশেস্কু অন্যায়ভাবে আশেপাশের অনেক স্থান থেকে জোরপূর্বক জমি দখল করেন এবং সেখান থেকে অনেক মানুষকে উচ্ছেদ করেন। রোমানিয়ার পার্লামেন্ট দুই কক্ষ বিশিষ্ট। রোমানিয়ার স্থানীয় ভাষায় পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষটি “সিনাত” এবং নিম্ন কক্ষটি “কামেরা দেপুতাতিলোর” নামে পরিচিত। পার্লামেন্টের ভেতর তিনটি ভিন্ন ধরণের মিউজিয়াম, একটি ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স সেন্টার, দেশটির স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম স্থপতি আলেকজান্দ্রু আইওয়ান কুজার স্মরণে একটি গ্যালারি এবং আন্ডারগ্রাউন্ডে একটি বাঙ্কার রয়েছে যেটি সকল ধরণের পারমাণবিক হামলা প্রতিরোধে সক্ষম। ১৯৮৪ সালে এ ভবনটির নির্মাণ কাজ শুরু হয় এবং এ ভবনটির মূল নকশা প্রণয়ন করেছিলেন রোমানিয়ার বিখ্যাত মহিলা স্থপতি আনকা পেট্রেস্কু। পুরো ভবনটির নির্মাণ কাজ শেষ হতে তেরো বছর সময় লেগেছিলো।

বুখারেস্টের অন্যতম মেট্রো স্টেশন

সম্পূর্ণ পার্লামেন্ট ভালোভাবে দেখতে হলে সর্বনিম্নে দুই দিন্ দরকার, আমি কথার ফাঁকে লোকটিকে প্রশ্ন করেই বসলাম ট্রান্সসিলভানিয়া সম্পর্কে। আমি তাঁকে বললাম যে আমি অনেক হাঙ্গেরিয়ানকে বলতে শুনেছি যে ট্রান্সসিলভানিয়া না কি প্রকৃতপক্ষে হাঙ্গেরির অংশ কিন্তু রোমানিয়া না কি প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর ফ্রান্স ও গ্রেট ব্রিটেনের মধ্যস্থতায় এ জায়গাটির মালিকানা লাভ করে। এ দাবিটির সত্যতা সম্পর্কে তাঁকে প্রশ্ন করলাম। তাঁর উত্তর ছিলো যে  ভ্লাদ দ্যা ইম্প্যালার যিনি ড্রাকুলা নামেই বেশি পরিচিত সবার কাছে, তাঁর জন্ম হয়েছিলো সিঘিশোয়ারাতে। সিঘিশোয়ারা বর্তমানে যেটা ট্রান্সসিলভানিয়া অন্তর্গত। ভ্লাদ দ্যা ইম্প্যালার রোমানিয়ানদের রাজা ছিলেন; হাঙ্গেরিয়ানদের সাথে তাঁর বিন্দুমাত্র সম্পর্ক ছিলো না বলে তিনি উল্লেখ করেন। এজন্য তাঁর এ বক্তব্য অনুযায়ী ট্রান্সসিলভানিয়া নিয়ে হাঙ্গেরিয়ানদের এ দাবি যুক্তিযুক্ত নয়। বরং ট্রান্সসিলভানিয়াকে হাঙ্গেরি রোমানিয়ার কাছ থেকে নিজেদের দখলে নেয় এবং প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ান সাম্রাজ্যের পতন ঘটলে ট্রান্সসিলভানিয়ার অধিকার রোমানিয়ার হাতে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। তাঁকে আমি জিজ্ঞেস করলাম পার্লামেন্টের ভেতরে প্রবেশের টিকেট ক্রয়ের ক্ষেত্রে ইউরো গ্রহণ করা হয় কি না। আমার এ প্রশ্নের উত্তরে তিনি বললেন যে আমাকে ইউরো একচেঞ্জ করতে হবে।  পার্লামেন্ট থেকে বের হয়ে একটু হাঁটলে সিটি সেন্টার। সিটি সেন্টার থেকে তিনি আমাকে সেখান থেকে ইউরো একচেঞ্জ করে আনতে বললেন। আমি তাঁর কাছ থেকে বিদায় নিয়ে সিটি সেন্টারের দিকে হাঁটতে শুরু করলাম।

বুখারেস্ট শহরটি সত্যিই অসাধারণ। ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে বিখ্যাত একটি স্ট্রিটের নাম  Champs-Elysées (বাংলা উচ্চারণ শঁজেলিজে)। নয়নাভিরাম স্থাপত্যশৈলীর বিভিন্ন নিদর্শন দ্বারা পরিপূর্ণ এ সড়কটি পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্যারিসে বেড়াতে আসা পর্যটকদের হৃদয়ে যে বিশেষ অনুভূতির সৃষ্টি করে তা চিরকাল স্মরণ রাখার মতো।বুখারেস্টের সেন্টারে বেড়াতে আসলেও আপনি  একই ধরণের অনুভূতি পাবেন। বুখারেস্টের সেন্টারটি  মূলত “ভিকটোরেই স্ট্রাদা” নামেই পরিচিত। ভিকটোরেই স্ট্রাদা আর শঁজেলিজের ছবি পাশাপাশি রাখলে আপনি আলাদা করতে পারবেন না কোনটি ভিকটোরেই স্ট্রাদার ছবি আর কোনটি শঁজেলিজের ছবি। ভিকটোরেই স্ট্রাদার প্রত্যেকটি বিল্ডিং চোখ জুড়ানো সৌন্দর্য্যে ভরা এবং কোন বিল্ডিং বাদ দিয়ে কোন বিল্ডিং এর সামনে ছবি তুলবেন সেটি ঠিক করতে অনেক সময় ঘণ্টার পর ঘণ্টা লেগে যেতে পারে। অসাধারণ নির্মাণশৈলীর স্থাপত্যকলা, শহরের গঠন এবং ইতিহাস, ঐতিহ্য এবং এর সঙ্গে বিদ্যমান সাহিত্য এবং চিত্রকলার অপরূপ মেলবন্ধনের কারণে বুখারেস্টকে পূর্ব ইউরোপের প্যারিস নামেও ডাকা হয়। নিকোলেই চশেস্কু স্বপ্ন দেখতেন যে বুখারেস্টকে হবে সোভিয়েত ব্লকের দেশগুলোর মধ্যে শিল্প ও সাহিত্যে সবচেয়ে সমৃদ্ধশালী নগরী। এ কারণে এ শহরটিকে তিনি প্যারিসের অনুকরণে সাজিয়েছিলেন। ইতিহাস যদিও তাঁকে ডিক্টেটর বা স্বৈরাচারী শাসক হিসেবে আখ্যায়িত করেছে কিন্তু বুখারেস্টের সাধারণ মানুষের কাছে তিনি এখনও ব্যাপক জনপ্রিয়। বুখারেস্টের মেট্রো স্টেশনগুলো তাঁর অবদান।

রোমানিয়ার রাজধানী বুখারেস্টে কিছু মনোরম কারুকার্যবিশিষ্ট বইয়ের দোকান রয়েছে। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য একটি নাম হচ্ছে কারতুরেসি কারুসেল। ধারণা করা হয় এ বইয়ের দোকানটিতে প্রায় দশ হাজারের মতো  বিভিন্ন ধরণের বই, পাঁচ হাজারের মতো বিভিন্ন ধরণের অ্যালবাম এবং ডিভিডির মতো আরও কিছু সংগ্রহ রয়েছে। এর স্থাপত্যশৈলী এবং ইন্টেরিওর চোখে পড়ার মতো। কারতুরেসি কারুসেল দেখার পর বের হয়ে পড়লাম কিছু খাওয়ার উদ্দেশ্যে। স্টেক রোমানিয়াতে খুবই জনপ্রিয় এবং সহজলভ্য একটি খাবারের আইটেম।  অনেকে দাবি করে থাকেন যে এ স্টেকের পীঠস্থান না কি প্রকৃতপক্ষে রোমানিয়া। যদিও এ দাবির স্বপক্ষে কোনও প্রমাণ পাওয়া যায় নি এখনও। সাধারণ মানুষের সামনে স্টেক শব্দটি উচ্চারণ করলে সবার প্রথমে টেক্সাস কিংবা মেক্সিকোর নাম ধ্বনিত হয়।

বুখারেস্টের সিটি সেন্টারটি খুবই গোছালো। যে সারিতে খাবারের দোকান, সে সারিতে কেবল খাবারের দোকান ছাড়া অন্য কিছু চোখে পড়বে না। আবার যে সারিতে বাণিজ্যিক ভবন সে সারিতে আপনি বানিজ্যিক ভবন ছাড়া অন্য কোনও কিছু খুঁজে পাবেন না। ফরাসিদের মতো রোমানিয়ানরা চিত্রকলা ও শিল্প-সাহিত্যের সমঝদার। ও সিরামিক শিল্পের জন্য রোমানিয়ানদের কদর এখনো পুরো বিশ্বব্যাপী। প্যারিসের মতো বুখারেস্টের রাস্তাতেও বিভিন্ন ধরণের ভাস্কর্য ও চিত্রকলার দেখা মিলে। আমি একটা রেস্টুরেন্ট থেকে রেড টুনা স্টেক অর্ডার করি। বুখারেস্টের রেস্টুরেন্ট কিংবা কফি শপগুলোতে একটা অদ্ভুত রীতির প্রচলন আছে। আপনি যদি ট্যুরিস্ট হন তাহলে খাবারের শেষে বিল পরিশোধ করার সময় আপনার কাছে খাবারের রিভিউ এবং সে রেস্টুরেন্ট কিংবা কফি বারের সেবার মান সম্পর্কে একটি রিভিউ লিখতে বলা হবে। বিলের পাশাপাশি আপনার কাছ থেকে টিপসও চাওয়া হতে পারে। যদি আপনি টিপস দিতে আগ্রহবোধ না করেন তাহলে রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষ মনে করবে যে আপনি তাঁদের খাবার এবং সেবার মানে সন্তুষ্ট নন। তাই যাঁরা খেতে আসেন এমনকি বুখারেস্টের স্থানীয় অনেক অধিবাসীকেও দেখেছি আমি খাবার গ্রহণের শেষে বিলের সাথে টিপস প্রদান করতে। বুখারেস্টে এ বিষয়টি অত্যন্ত সাধারণ। খাওয়া শেষ করে আমি আবার হাঁটতে আরম্ভ করি। কিছুক্ষণ হাঁটার পর আমি সেক্টর কাছাকছি কোনও একটা জায়গায় পৌঁছি। রোমানিয়ার প্রাক্তন রাষ্ট্রনায়ক চশেস্কুকে এখানে গুলি করা হত্যা হয়েছিলো। একটা বেঞ্চ খুঁজে বের করে সেখানে বসলাম, একজন লোক এ সময় আমাকে দেখে আমার দিকে এগোতে শুরু করলেন। তাঁর বয়স আনুমানিক ৬৫ থেকে ৭০ হবে। তিনি আমার দিকে অগ্রসর হলেন এবং আমাকে জিজ্ঞেস করেন যে তিনি আমার পাশে যদি তিনি বসতে চান তাহলে আমার কোনও আপত্তি আছে কি না। আমি তাঁকে আমার পাশে বসার জন্য অনুমতি প্রদান করলাম। এরপর তিনি আমার পাশে বসলেন এবং আমাকে  জিজ্ঞেস করলেন যে আমি কোথা থেকে এসেছি। আমি বললাম যে আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। এরপর তিনি আমার ধর্মীয় বিশ্বাস সম্পর্কে জানতে চাইলেন। আমি বললাম যে আমি মুসলিম। এ কথা শোনার সাথে সাথে তিনি আমাকে জিজ্ঞেস করলেন আমি নামাজে যেতে আগ্রহী কি না, কিংবা হালাল খাবার সার্ভ করে এমন কোনো রেস্টুরেন্ট খুঁজছি কি না। ইসলাম ধর্মের বিভিন্ন বিষয়ের ওপর তাঁর এক ধরণের আগ্রহ লক্ষ্য করলাম। একই সাথে ইসলাম ধর্মের ওপর তাঁর মাঝে এক ধরণের অনুরাগ ফুঁটে উঠলো। আমাকে তিনি বললেন, “তোমরা যারা ইসলাম ধর্মের অনুসারী তোমাদের জীবনযাত্রা আমাদের তুলনায় আলাদা, তোমারা অ্যালকোহল পান করো না। তোমাদের নির্দিষ্ট রুটিন রয়েছে যা আমাকে ভীষণভাবে আকর্ষণ করে।” তিনি তাঁর পকেট থেকে একটা কাগজ বের করলেন এবং আমাকে একটি অ্যাড্রেস দিয়ে বললেন এ ঠিকানায় তুর্কিদের একটা মসজিদ রয়েছে। অনেকক্ষণ কথা হলো তাঁর সাথে, এ ভদ্র লোকের নাম আইওয়ান রাম্বু। এক সময় তিনি রোমানিয়ার সেনাবাহিনীর হয়ে কাজ করতেন, পেশায় তিনি একজন নিউরোলজিস্ট । বিভিন্ন বিষয় নিয়ে তাঁর সাথে অনেকক্ষণ কথা হলো, তিনি খুবই দুঃখ করলেন যে আজকের দিনে রোমানিয়াতে উল্লেখ যোগ্য হারে জনসংখ্যা কমে আসছে। অর্থনৈতিকভাবে রোমানিয়া দুর্বল হয়ে পড়েছে। অতিরিক্ত আয়ের আশায় দেশটিতে বসবাস করা তরুণ প্রজন্মের অনেকে জার্মানি, ফ্রান্স, ইতালি, স্পেন, সুইডেন, ডেনমার্ক, অস্ট্রিয়া, নেদারল্যান্ডসসহ পশ্চিম ইউরোপের দেশগুলোতে পাড়ি জমাচ্ছেন।  চশেস্কু সম্পর্কে তাঁকে প্রশ্ন করলাম। আমার প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানালেন যে, চশেস্কুকে ইতিহাস স্বৈরশাসক হিসেবে আখ্যা দিয়েছে কিন্তু বাস্তবে চশেস্কু ঠিক ততোটা খারাপ নন যতোটা আমরা ধারণা করি। আইওয়ান রাম্বু বলেন, চশেস্কুর শাসনামলে বুখারেস্ট ছিলো পরিপূর্ণভাবে প্যারিসকে টেক্কা দেওয়ার মতো একটি শহর। অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে বুখারেস্টকে গড়ে তুলেছিলেন এবং বুখারেস্টের আধুনিকায়নের জন্য সম্ভাব্য সকল পদক্ষেপ তিনি গ্রহণ করেছিলেন। রাম্বুর মতে গণতান্ত্রিক এবং মুক্তবাজার অর্থনীতির পথে রোমানিয়ার অগ্রযাত্রা দেশটির সাধারণ মানুষের জন্য সুখকর অভিজ্ঞতা ছিলো না। অনেক রোমানিয়ান এ সময় বেকার হয়ে পড়েন, অনেকে দেশ ছেড়ে অন্যত্র চলে যেতে বাধ্য হন। আইওয়ান রাম্বু বলেন, ধুঁকতে থাকা রোমানিয়ার অর্থনীতির মতো বুখারেস্টও ধীরে ধীরে জৌলুস হারিয়ে ফেলছে। তবে বুখারেস্টের বাহিরের মানুষের কাছে চশেস্কুর জনপ্রিয়তা শূন্যের কোঠায়। আইওয়ান রাম্বু বলেন, নব্বইয়ের দশকে যখন কমিউনিজমের পতন ঘটে সে সময় চশেস্কু ছিলেন একমাত্র শাসক যিনি প্রমাণ করতে চেয়েছিলেন যে কমিউনিজমের কার্যকারিতা তখনও ফুরোয় নি। তাই নব্বইয়ের দশকের পরবর্তী সময়ে যখন কমিউনিজমভিত্তিক শাসন ব্যবস্থার দেশগুলোতে অর্থনীতির প্রবল সঙ্কোচন সৃষ্টি হয় এবং ঋণের সমস্যায় যখন এ সকল দেশ জর্জরিত হয়ে পড়ে  রোমানিয়ার অর্থনীতি সেরকম একটি ক্রান্তিকালীন সময় এসেও একটু আশার প্রদীপ দেখাচ্ছিলো। চশেস্কু রোমানিয়াকে কোনো ঋণের বোঝায় পড়তে দেন্ নি, বাহিরের বিশ্বে দেশটির সমস্ত দেনা তিনি মিটিয়ে দিয়েছিলেন। পরিবার প্রথাকে বিকাশ করার জন্য তিনি অনেক কাজ করেছেন। সবাইকে সে সময় বাধ্যতামূলকভাবে কোনো না কোনো পেশাভিত্তিক কাজে অংশ নিতে হতো। প্রত্যেক পরিবারের জন্য একটি করে বাড়ি ও একটি গাড়ি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিলো রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে। প্রয়োজনীয় সকল নাগরিক সুবিধা রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে সবার জন্য সমানভাবে নিশ্চিতের ব্যবস্থা করা হয়েছিলো। চশেস্কু ব্যক্তিগত জীবনে কোনও ধর্মে বিশ্বাস করতেন না তবে জীবনের শেষ পর্যায়ে এসে চার্চগুলোকে উন্মুক্ত করে দিয়েছিলেন কিন্তু শেষ রক্ষা হয় নি তাঁর। ততোক্ষণে প্রায় সাড়ে এগারোটা বেজে গিয়েছে। দেখলাম আমার প্রিয় বান্ধবী ক্রিস্টিনা আমাকে ম্যাসেজ দিয়েছে এবং সে আমাকে তাঁর বাসার পাশের একটা পার্কে আসার জন্য বলেছে তাঁর সাথে দেখা করার জন্য। বুখারেস্টের মূল সিটি থেকে এ পার্কের অবস্থান কিছুটা বাহিরে। শহরের যান্ত্রিক কোলাহল সেখানে পাওয়া যায় না বললেই চলে। রোমানিয়ার স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম স্থপতি  আলেকজান্দ্রু আইওয়ান কুজার নাম অনুসারে এ পার্কের নাম রাখা হয়েছে আলেকজান্দ্রু আইওয়ান কুজা পার্ক।  বুখারেস্টের একটা জিনিস আমার কাছে খুব ভালো লেগেছে। সাধারণ মানুষের বিনোদনের জন্য শহরের আনাচে-কানাচে সহ বিভিন্ন জায়গায় ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে অসংখ্য পার্ক। আর বুখারেস্টের রাস্তা-ঘাঁটে স্ট্রিট ফুডের ব্যাপক জনপ্রিয়তা লক্ষ্য করলাম। দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপের দেশগুলোর মানুষের কাছে স্ট্রিট ফুডের আলাদা এক ধরণের জনপ্রিয়তা রয়েছে যেটা ইউরোপের অন্যান্য দেশে সে ভাবে নেই। রাস্তা-ঘাঁট, ফুটপাথ, পার্ক, স্টেশনসহ বিভিন্ন জায়গায় কার্ট কিংবা ছোটোখাটো ফুডশপগুলোতে দোকানিরা হটডগ, কফি, হাওয়ায়-মিঠাই, বাদাম, পিজ্জার স্লাইস এমনকি স্টেকের পসরা সাজিয়ে বসেন। দাম একেবারে হাতের নাগালে। জনাব আইওয়ান রাম্বু আমাকে মেট্রো স্টেশনে পৌঁছানোর রাস্তা দেখিয়ে দিলেন; আমি মেট্রোতে চেপে বসলাম।

ইউরোপের অন্যান্য রাজধানী শহরের তুলনায় বুখারেস্টে অনেক কম খরচে পাবলিক ট্রান্সপোর্ট পরিষেবা উপভোগ করা যায়। এর কারণ হচ্ছে বুখারেস্টের মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন দেশটির সাধারণ মানুষকে পাবলিক ট্রান্সপোর্ট ব্যবহারে বিশেষভাবে উৎসাহ দিয়ে থাকে এবং এ লক্ষ্যে গণপরিবহন পরিষেবার ওপর দেশটির মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন ভর্তুকি দিয়ে থাকে। বুখারেস্টের মেট্রো সার্ভিস অনায়াসে ইউরোপের যে কোনও প্রসিদ্ধ শহরের মেট্রো সার্ভিসকে অনায়াসে চ্যালেঞ্জ জানাতে পারবে। তা সত্ত্বেও ট্রাফিক জ্যাম বুখারেস্টের মানুষের দৈনন্দিন জীবনের অংশ। মূলত বুখারেস্টের বেশির ভাগ স্থানে গাড়ি পার্কিং করতে তেমন কোনও চার্জ প্রদান করতে হয় না বিধায় এবং একই সাথে এ বিষয়ে মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন খুব বেশী একটা কঠোর না হওয়ায় স্থানীয় অধিবাসীরা অনেক সময় যে যার মতো খুশি যেখানে সেখানে গাড়ি পার্ক করে রেখে দেয়। যার কারণে অফিস আওয়ারে বুখারেস্টের বিভিন্ন স্থানে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।


 সেক্টর ৫ থেকে মেট্রোতে চড়ে আলেকজান্দ্রু আইওয়ান কুজা পার্কে পৌঁছাতে তেমন একটা সময় লাগলো না। পার্কের সৌন্দর্য রীতিমতো চোখ ছানাবড়া করার মতো। শীতের রিক্ততায় কয়েক দিন্ আগেও রাস্তার ধারে নির্জীব আর প্রাণহীনভাবে যে সকল গাছ পড়েছিলো এপ্রিল বা মে মাস আসতে না আসতে একেবারে অবিশ্বাস্যভাবে গাছগুলো ভরে উঠেছে সবুজ কচি পাতায়। পত্রপল্লব ভরে উঠছে নতুন ফুলে। কেউ বিশ্বাস করবে না কয়েক দিন আগেই প্রকৃতির প্রাণের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া ছিলো দুষ্কর; এপ্রিল আসতে না আসতেই প্রকৃতি যেনও একেবারে নতুন প্রাণ ফিরে পেয়েছে। চারিদিকে পাখিদের কলতান, মৌমাছিগুলো যেনও ছুটে চলেছে আপন গতিতে ফুল থেকে পুষ্পরস সংগ্রহ করতে। রোদেলা ভোরের বাতাস সত্যি মৃদুমগ্ন, এক চিলতে বসন্তের রোদ যেনো পৃথিবীর সবচেয়ে দুর্লভ হীরের টুকরো থেকেও দামি। ইউরোপে বসন্ত যেনো সত্যি অসাধারণ, ব্যাকরণের কোনও উপমা দিয়ে তার সৌন্দর্য্য বলে বোঝানো যাবে না। জীবনে অনেক বসন্তের দেখা পেয়েছি তবে সেবারের বসন্তটি ছিলো সত্যি আমার জন্য বিশেষ। পার্কের ভেতর বেঞ্চে গিয়ে বসলাম, ক্রিস্টিনাকে ফেসবুকের মাধ্যমে ম্যাসেজ দিলাম। কিছুক্ষণ পর দেখলাম ক্রিস্টিনা সেখানে এসে হাজির। আমাকে দেখার সাথে সাথে জড়িয়ে ধরলো এবং আমার গালে একটা চুমু আঁকলো। সে এক অনাবিল প্রশান্তি। পৃথিবীতে এর থেকে প্রশান্তির খুব কম জিনিসই আছে। একসাথে আমরা বেশ কিছুক্ষণ পার্কের ভেতর হাঁটাহাঁটি করলাম, ক্রিস্টিনার মধ্যাকার সৃজনশীলতা আমাকে ভীষণভাবে আকর্ষণ করেছে।  ক্রিস্টিনা প্রকৃতির বিভিন্ন ছবি তুলতে ভীষণ ভালোবাসে। কখনও গাছ কিংবা গাছের পাতা, ঘাস, পাখি, কাঠবিড়ালী এ সবের ছবি তোলে। কিছুক্ষণ পার্কে বসে গল্প করার পর আমরা চলে গেলাম পার্কের ঠিক বিপরীতে থাকা একটি শপিং মলে। শপিং মলের ছাদের চিলেকোঠায় একটা রেস্টুরেন্ট ও কফি বার রয়েছে। সেখান থেকে পুরো পার্কের অসাধরণ একটি ভিউ পাওয়া যায়। আমি সারাদিন ঘুরাঘুরি কারণে বেশ তৃষ্ণার্ত হয়ে পড়েছিলাম, এজন্য আমি কোকাকোলা অর্ডার করলাম আর ক্রিস্টিনা কফি অর্ডার করলো। এরপর অনেক ক্ষণ একসাথে গল্প হলো, বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হলো। পেশাগত জীবনে ক্রিস্টিনা একজন সফল মোটরস্পোর্টস ব্যক্তিত্ব। ১৯ বছর থেকেই ক্রিস্টিনা ফর্মুলা ওয়ান মোটরবাইক রেসের প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে আসছে যদিও বর্তমানে তাঁর সময়টা অনেক খারাপ যাচ্ছে। মোটর স্পোর্টস নিঃসন্দেহে অনেক ব্যয়বহুল, তাই নিয়মিতভাবে মোটর স্পোর্টসে সে অংশ নিতে পারছেও না। এদিকে তার বয়স ত্রিশ পেরিয়ে গিয়েছে, এখনও যদিও সে যথেষ্ট ফিট কিন্তু তবুও কেনও জানি সে স্পন্সর পাচ্ছে না যার মাধ্যমে সে আসলে আবার কাঙ্খিতভাবে রেসিং ট্র্যাকে ফিরে আসবে। কয়েক বছর আগে তাঁর বাবা মারা যায় এবং তাঁর মা এখন বয়সে অনেক বৃদ্ধ। এক ধরণের টানা-পোড়নের মধ্য দিয়ে সে যাচ্ছে। পুঁজিবাদী সমাজ ব্যবস্থার ওপর সে খুবই ক্ষুব্ধ কেননা তাঁর বক্তব্য হচ্ছে পুঁজিবাদী সমাজ ব্যবস্থা এমন একটি অর্থনৈতিক সিস্টেমের জন্ম দেয় যেখানে মানুষের কোনোস্বপ্ন থেকে আরম্ভ করে নিত্য প্রয়োজনীয় মৌলিক অধিকার এমনকি চিকিৎসা সেবার মতো মানবিক বিষয়গুলোও বাণিজ্যের একটি বিষয় হিসেবে পরিণত হয়। নতুন করে মোটর বাইক কেনা এমনকি তাঁর এখন যে বাইকটি রয়েছে বেশ পুরোনো বাইক সেটাতে চাকার মেরামত করতে যে খরচটুকু প্রয়োজন সেটিও তাঁর হাতে নেই। আবার রোমানিয়া যদিও বর্তমানে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত হয়েছে কিন্তু তারপরেও এখনও দেশটির সাধারণ মানুষের আয় ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অন্যান্য দেশ থেকে অনেক নীচে। 

ক্রিস্টিনার বর্তমান বয়স প্রায় বত্রিশ যেখানে আমার বয়স মাত্র বাইশ। আমার থেকেও দশ বছরের বড় কিন্তু তারপরেও কেনও জানি যখন ক্রিস্টিনার কথা মনে পড়ে তখন আমার মনের থেকে অন্য রকম কিছু একটা উপলব্ধি হয়। কোনো এক অজানা কারণে আমি দূর্বল হয়ে পড়ি। ২০১৮ সালে আমার আবিষ্কার করা সবচেয়ে সুন্দর জিনিসটি ছিলো এ ক্রিস্টিনা। ২০১৪ সালে যাঁর সাথে আমার ফেসবুকে পরিচয় হয়েছিলও। কখনও ভাবি নি যে সামনাসামনি এভাবে দেখা করতে পারবো কিংবা ফেসবুকে ভার্চুয়ালি পরিচয় হওয়া কোনোএকজন মানুষও যে এতোটা সুন্দর হতে পারে সেটা কখনও কল্পনায় ছিলো না। জীবনের অন্যতম সেরা একটা অভিজ্ঞতা পেয়েছি আমি এ ক্রিস্টিনার থেকে। এক সাথে সে কফি বারে কিছু সময় অতিবাহিত করার পর আমরা আবার কিছুক্ষণ একসাথে আবারও পার্কে গিয়ে হাঁটাহাঁটি করি।

ক্রিস্টিনা আমাদের সবার থেকে আলাদা, সে চায় জীবনটাকে উপভোগ করতে। নিজের ইচ্ছাশক্তির ওপর বেঁচে থাকতে, সমাজের সকল প্রথাকে সে ভাঙতে চায়। আমরা আজকে অনেকেই ইন্টারমিডিয়েট পাশ করার পর একটা ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হওয়ার জন্য ডুকরে কেঁদে পরে আর সেই ইউনিভার্সিটিকে সে প্রত্যাখ্যান করে চলে আসে এই বলে যে প্রাতিষ্ঠানিক জ্ঞান অর্জনের থেকে বাস্তবিকভাবে কোনোজ্ঞান অর্জন এবং সেই সাথে নিজের অর্জিত অভিজ্ঞতাকে সমাজের মানুষের কল্যাণে ব্যয় করাটাই প্রকৃত স্বার্থকতা। কর্পোরেটক্রেসিকে সে পুরোপুরি ভেঙ্গে দিতে চায়। আমাদের সকলের চিন্তার বাহিরে গিয়েও সে নিজেকে মেলে ধরতে চায়।

এক সাথে কিছু ছবি তুলি, ততোক্ষণে বিকেল হয়ে গিয়েছে আর আমার ফেরার সময়ও হয়ে গিয়েছে। ফিরে যাওয়ার বাসার ছাড়ার সময়ও হয়ে এসেছে। ক্রিস্টিনা আমাকে মেট্রো স্টেশন পর্যন্ত এগিয়ে দেয়। সেখানে দায়িত্বেতে থাকা এক পুলিশ সদস্যকে আমরা অনুরোধ করি আমাদের আরও কিছু ছবি তুলে দেওয়ার জন্য। তিনি দায়িত্বরত অবস্থায়ও আমাদের অনুরোধ রাখেন আন্তরিকতার সাথে। এরপর আমি ক্রিস্টিনাকে বিদায় জানিয়ে মেট্রোতে উঠে পড়ি সে মিলিটারি অটোগারার উদ্দেশ্যে যেখান থেকে আমার বাস ছাড়ার কথা ছিলো। বিদায় লগ্নে ক্রিস্টিনা আমাকে আরও দুইবার জড়িয়ে ধরেছিলো এবং আমার গালে চুমু এঁকেছিলো। সে এমন এক স্বাদ যে স্বাদ পৃথিবীর সমস্ত ঝালকে কিংবা তেতোকে এক নিমেষে পৃথিবীর সবচেয়ে সুমিষ্ট কোনোবস্তুতে পরিণত করতে পারে।জানি না সে ভালো লাগা আদৌতে কোনোভালোবাসায় পরিণত হলো কি না তবে জানি যদি সেটা ভালোবাসায় পরিণত হয়ও কোনোদিন্ সেটাকে বাস্তবায়িত করাও সম্ভব নয় কেননা আমাদের সমাজে এ ধরণের অসম প্রেম কাহিনীগুলো কখনও স্বার্থকতা লাভ করে না।

আলেকজান্দ্রু আইওয়ান কুজা থেকে মিলিটারি আটোগারা যাওয়ার পথে একবার মেট্রো পরিবর্তন করতে হয়। এ বিষয়টি নিয়ে আমার মাঝে এক ধরণের সন্দেহ কাজ করছিলো। বুঝে উঠতে পারছিলাম না কোথায় গিয়ে মেট্রো পরিবর্তন করতে হবে। পথিমধ্যে এক যুবকের সাথে কথা হয়,  তাঁর কাছে এ বিষয়ে সহযোগিতা চাই। তিনি দেখলাম আগের সে ভদ্রমহিলার মতো নিজ থেকে আগ্রহ সহকারে আমাকে সঠিক মেট্রোতে তুলে দেন।  ফ্লিক্স বাসে বুখারেস্টের মিলিটারি অটোগারার বাস টার্মিনাল থেকে এবারের গন্তব্য হাঙ্গেরির রাজধানী বুদাপেস্ট। প্রায় চৌদ্দ ঘণ্টার বাস জার্নি। সন্ধ্যা ছয়টার দিকে বুখারেস্ট থেকে বুদাপেস্টের উদ্দেশ্যে আমাদের বাসটি ছেড়ে যায়। এ সময় কেনও জানি আমি অনেকটা ভেঙে পড়ি । চোখ থেকে অশ্রু ঝরতে থাকে। আমি কাঁদতে আরম্ভ করি। কোনোভাবে রোমানিয়া ছেড়ে যেতে ইচ্ছে করছিলো না। ক্রিস্টিনার প্রতি আমার সেদিনের অনুভূতির বিন্দুমাত্র পরিবর্তন আসে নি তিন বছর পরেও এসে। হয়তো বা “শেষের কবিতা” উপন্যাসে উল্লেখিত লাবণ্যের মতো ক্রিস্টিনাও আমার কাছে এক দীঘির জল যাঁর প্রতি আমার ভালোলাগা বা ভালোবাসা কোনোদিনও ফুরোবে না।

রোমানিয়াতে একটি সুবিধা হচ্ছে এখানকার বেশীরভাগ মানুষই বিশেষত যারা মধ্যবয়স্ক তাদের প্রায় সবাই ইংরেজিতে কথা বলতে পারেন। ২০১৮ সালের ইপি ইংলিশ প্রোফিসিয়েন্সি ইনডেক্স অনুযায়ী রোমানিয়ার স্কোর ৬১.৪১। অর্থাৎ ইংরেজি মাতৃভাষা নয় এমন দেশগুলোর অধিবাসীদের ক্ষেত্রে ইংরেজি দক্ষতায় রোমানিয়ার অবস্থান বিশ্বে ১৩। রোমানিয়ার আধিকারিক ভাষা রোমানিয়ান এবং রোমানিয়ান ল্যাঙ্গুয়েজ ইতালিয়ান কিংবা ফ্রেঞ্চদের ভাষার সাথে অনেকটা সাদৃশ্যপূর্ণ। পূর্ব ইউরোপের মধ্যে রোমানিয়ান একমাত্র ল্যাঙ্গুয়েজ যেটি ল্যাটিন ল্যাঙ্গুয়েজ ফ্যামিলির অন্তর্ভুক্ত যার চারপাশ স্লাভিক/ইউরালিক ল্যাঙ্গুয়েজের ফ্যামিলির জাতিগোষ্ঠী দিয়ে পরিবেষ্টিত। অর্থাৎ রোমানিয়ান পূর্ব ইউরোপের মধ্যে একমাত্র রোমান্স ল্যাঙ্গুয়েজ। দেশটির প্রায় ৯২ শতাংশ মানুষ এ ভাষায় কথা বলে থাকে। ইতালি, স্পেন, ফ্রান্স কিংবা পর্তুগাল থেকে হাজারো মাইল দূরে অবস্থিত একটি দেশে কীভাবে ল্যাটিন ভাষাগোষ্ঠীর ভাষা প্রবেশ করলো সেটা নিয়ে নেহাৎ গবেষণা হয় নি কম তবে এখনও এর প্রকৃত কারণ কেউ বের করতেও পারে নি। তবে ধারণা করা হয় যে পূর্ব রোম সাম্রাজ্য তথা বাইজেনটাইন সাম্রাজ্যের পতন ঘটলেও বাইজেনটাইন রাজার অধীনে কাজ করা সৈনিকদের এক অংশ সুউচ্চ কার্পেথিয়ান পর্বতমালার কারণে এ অঞ্চলটিকে তাঁদের জন্য নিরাপদ হিসেবে ধারণা করেছিলো এবং এদের মাধ্যমে  আজকের দিনের রোমানিয়ানদের গোড়াপত্তন হয়েছে। অর্থাৎ চারদিকে স্লাভিক এবং ইউরালিক ভাষাগোষ্ঠীর মানুষদের দ্বারা বেষ্টিত হওয়া সত্বেও রোমানিয়াতে এ কারণে ল্যাটিন ভাষার প্রচলন ঘটে। আবার অনেকে মনে করেন যে রোমান সম্রাট নিরোর হাতে রোমের পতন ঘটলে রোম থেকে একদল মানুষ নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে পূর্ব দিকে অগ্রসর হতে থাকে এবং শেষ পর্যন্ত সুউচ্চ কার্পেথিয়ান পর্বতমালা দ্বারা বেষ্টিত এ অঞ্চলটিতে তাঁরা বসতি স্থাপন করতে শুরু করে যাঁদের হাত ধরেই এ অঞ্চলটিতে ল্যাটিন ভাষার প্রচলন ঘটে।   ল্যাঙ্গুয়েজ ব্যারিয়ারের দিক থেকে রোমানিয়াকে ইউরোপের অন্যান্য অনেক দেশের চেয়ে সফট মনে হয়েছে। আবার মোটামুটি ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অন্যান্য দেশের তুলনায় আমার কাছে রোমানিয়াকে সবচেয়ে সস্তা দেশ মনে হয়েছে, দেশটিতে জীবনযাত্রার ব্যয় অনেক কম ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত বাকি সব দেশের তুলনায়।

রোমানিয়ার বেশিরভাগ মানুষ অর্থোডক্স খ্রিস্টানিটিতে বিশ্বাসী। দেশটির বিভিন্ন স্থানে অর্থোডক্স চার্চের উপস্থিতি খুঁজে পাওয়া যায়। এ ছিলো আমার রোমানিয়া ভ্রমণের গল্প, বছর তিনেক আগের এ দিনটি আমার জীবনের সবচেয়ে স্মরণীয় দিনগুলোর মধ্যে একটি। ইউরোপে আসার পর এ দিনটি ছিলো সেই দিন্ যে দিন্ আমি সত্যিকার অর্থে হাসতে পেরেছিলাম, আবার জীবনে সত্যিকার অর্থে সে দিন্ কেঁদেছিলাম। এক সাথে এতোগুলো আন্তরিক আর বিশাল হৃদয়ের মানুষকে আমি কখনও দেখি নি।বারবার আমার শুধু ফিরে যেতে ইচ্ছে করে এ দেশটিতে। জেট ইঞ্জিন, ইনসুলিন কিংবা ফাউন্টেন পেনের মতো মূল্যবান জিনিসের আবিষ্কার হয়েছিলো রোমানিয়াতে।  নাদিয়া এলেনা কোমেনেসির মতো বিশ্ব অলিম্পিকের মঞ্চে পাঁচ বার স্বর্ণপদক পাওয়া জিমন্যাস্ট  অথবা সিমোনা হালেপের মতো টেনিস তারকার জন্ম হয়েছিলো এ দেশে। নিজ মাতৃভূমি বাংলাদেশের পর এ দেশটিকে আমি সবচেয়ে বেশি ভালোবাসি। আবারও তাই ফিরে যেতে চাই রোমানিয়ায়। পুরো পৃথিবীকে এ দেশটি অনেক কিছু দিয়েছে। বর্তমানে হয়তো বা শারীরিকভাবে বাংলাদেশ এবং স্লোভেনিয়া এ দুই দেশে যাওয়া আসার মধ্যে আছি তবে আমার মন পড়ে থাকে রোমানিয়ার রাজধানী বুখারেস্টে। সত্যি রোমানিয়ানদের মতো এরকম আন্তরিক এবং বন্ধুবাৎসল জাতিগোষ্ঠীর মানুষ ইউরোপে দ্বিতীয়টি নেই।
লেখকঃ শিক্ষার্থী, দ্বিতীয় বর্ষ, ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন ফিজিক্স অ্যান্ড অ্যাস্ট্রোফিজিক্স, ইউনিভার্সিটি অব নোভা গোরিছা, স্লোভেনিয়া 

Leave a Comment